মঙ্গলবার , জানুয়ারি ১৮ ২০২২
Home / নিউজ / খাস জমির অধিকার ভূমিহীন জনতার এই শ্লোগানকে সামনে রেখে আজ কুড়িগ্রাম জেলা রাজারহাট উপজেলা ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়ন ৯ নং ওয়ার্ড চতলার বিল। জমির পরিমাণ ১৫ একর ৭০ শতাংশ যাহা কিছু দিন ধরে ভূমিদস্যুরা মুস্টিমেয় কতিপয় ভূমিদস্যু জবরদখল করে খাচ্ছে। গত কয়েকদিন আগে রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি এবং স্থানীয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে ভূমিদস্যুরা সমঝোতা করে যে, তারা বিল ভূমিহীন ও সাধারণ জনগণের মাঝে ফিরিয়ে দিবে। কিন্তু পরবর্তী সময়ে তারা তা না করে ঐ বিল পাড় বেঁধে পুকুর তৈরি করে মাছ চাষ শুরু করে। এতে ঐ এলাকার ভূমিহীন ও সাধারণত জনগণ ঐ বিলে নামতে পারে না। ভূমিদস্যুরা বিলের আকার নিচ্ছিন্ন করে জবরদখল করে খাচ্ছে। ভূমিদস্যুরা সরকারি জমি অবৈধভাবে হস্তক্ষেপ করে রেখেছে। তাই উক্ত ইউনিয়নের ভূমিহীন ও সাধারণত জনগণ বুঝতে পেরে পাড় কেটে বিলে পরিনত করে। তারপর ঐ বিলে মাছের পোনা ছাড়ে। এতে করে অসহায় ভূমিহীন পরিবার ও সাধারণ জনগণ এবং সরকারের স্বার্থ সংরক্ষিত হবে।কুড়িগ্রাম জেলার জিএন বাংলা টিভির সাংবাদিক এস কে মিন্টু/

খাস জমির অধিকার ভূমিহীন জনতার এই শ্লোগানকে সামনে রেখে আজ কুড়িগ্রাম জেলা রাজারহাট উপজেলা ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়ন ৯ নং ওয়ার্ড চতলার বিল। জমির পরিমাণ ১৫ একর ৭০ শতাংশ যাহা কিছু দিন ধরে ভূমিদস্যুরা মুস্টিমেয় কতিপয় ভূমিদস্যু জবরদখল করে খাচ্ছে। গত কয়েকদিন আগে রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি এবং স্থানীয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে ভূমিদস্যুরা সমঝোতা করে যে, তারা বিল ভূমিহীন ও সাধারণ জনগণের মাঝে ফিরিয়ে দিবে। কিন্তু পরবর্তী সময়ে তারা তা না করে ঐ বিল পাড় বেঁধে পুকুর তৈরি করে মাছ চাষ শুরু করে। এতে ঐ এলাকার ভূমিহীন ও সাধারণত জনগণ ঐ বিলে নামতে পারে না। ভূমিদস্যুরা বিলের আকার নিচ্ছিন্ন করে জবরদখল করে খাচ্ছে। ভূমিদস্যুরা সরকারি জমি অবৈধভাবে হস্তক্ষেপ করে রেখেছে। তাই উক্ত ইউনিয়নের ভূমিহীন ও সাধারণত জনগণ বুঝতে পেরে পাড় কেটে বিলে পরিনত করে। তারপর ঐ বিলে মাছের পোনা ছাড়ে। এতে করে অসহায় ভূমিহীন পরিবার ও সাধারণ জনগণ এবং সরকারের স্বার্থ সংরক্ষিত হবে।কুড়িগ্রাম জেলার জিএন বাংলা টিভির সাংবাদিক এস কে মিন্টু/

About নিজস্ব প্রতিবেদক

Check Also

ঢাকা: গোপালগঞ্জ থেকে পাঁচদিন নৌকা দিয়ে সাজানো রিকশা চালিয়ে আওয়ামী লীগের সম্মেলনে এসেছেন সত্তর পেরিয়ে একাত্তরে পড়া নৌকা পাগল নূরু মিয়া। আর তাতে নূরু মিয়ার খরচ হয়েছে প্রায় ২৬ হাজার টাকা।

???? ??? ?? ?????? ????? ??????? ??? ????? ????? ?????? ???? ???? ?? ???? ?? …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *